এডিসের লার্ভা পাওয়া গেলে আমরা আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করবো: মেয়র আতিক

জাতীয় বিশেষ প্রতিবেদন মহানগর লিড নিউজ সমগ্র বাংলা স্বাস্থ্য

আলিফ হাসান (স্টাফ রিপোর্টার)

এডিসের লার্ভা পাওয়া গেলে আমরা আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করবো। আইন অনুযায়ী নিয়মিত মামলা হবে। কঠোর থেকে কঠোরতর ব্যবস্থা নেওয়া হবে।”

বুধবার (১১ মে) সকালে রাজধানীর উত্তরায় এডিস ও ডেঙ্গু বিরোধী নাগরিক সচেতনতামূলক পথসভায় অংশ নিয়ে এসব কথা বলেন ডিএনসিসি মেয়র মোঃ আতিকুল ইসলাম।

ডেঙ্গু জ্বরের বাহক এডিস মশা নির্মূলে ঝুঁকিপূর্ণ ওয়ার্ডগুলোতে অভিযান শুরু করেছে ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশন (ডিএনসিসি) এলাকায় ১০ দিনের মশা (ডেঙ্গু ও এডিস) নিধন কর্মসূচির ঘোষণা দিয়েছেন মেয়র মো. আতিকুল ইসমাল। ১৭ থেকে ২৬ মে পর্যন্ত এই কর্মসূচি চলবে বলে জানিয়েছেন মেয়র।

পথসভায় অংশ নিয়ে মেয়র ওই অঞ্চলের কাউন্সিলরবৃন্দ, ডিএনসিসির কর্মকর্তাবৃন্দ ও স্থানীয় জনগণকে সঙ্গে নিয়ে কয়েকটি সড়ক প্রদক্ষিণ করে জনগণকে এডিস ও ডেঙ্গু নিয়ন্ত্রণে পরিষ্কার পরিচ্ছন্নতার বিষয়ে সচেতন করেন।

এসময় তিনি দুটি নির্মাণাধীন ভবন পরিদর্শন করেন এবং এডিস মশার লার্ভা পাওয়ায় বাড়ির মালিকদের সাবধান করেন। মেয়র ছাত্র-ছাত্রীদের মধ্যে সচেতনতা সৃষ্টির লক্ষ্যে এসময় ইন্টারন্যাশনাল হোপ স্কুল বাংলাদেশের শিক্ষার্থীদের সাথে শ্রেণিকক্ষে গিয়ে কথা বলেন।

এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, “আমরা যেটা তথ্য পেয়েছি গত বছরের চেয়ে এবার ডেঙ্গু আরও বেশি ভয়ঙ্কর হতে পারে। আমার কথা হলো, আমরা সাধ্য মতো চেষ্টা করবো। যা যা করা দরকার আমার কাউন্সিলদের নিয়ে, সিটি করপোরেশনের সবাইকে নিয়ে তা করবো। প্রত্যেকটি ওয়ার্ডে ওয়ার্ডে গিয়ে ক্যাম্পেইন করা হবে।”

ডেঙ্গু মোকাবিলায় সিটি করপোরেশন কঠোর হবে বলে হুশিয়ারি দিয়ে মেয়র আতিকুল ইসলাম বলেন, “এডিসের লার্ভা পাওয়া গেলে আমরা আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করবো। আইন অনুযায়ী নিয়মিত মামলা হবে। গতবার আমরা ৫ লাখ টাকা পর্যন্ত জরিমানা করেছি। এবারও সেটি হবে, জেলও হবে। কঠোর থেকে কঠোরতর ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

মেয়র আরো বলেন, “ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশন এরিয়ার সমস্ত ওয়ার্ডে আমাদের এই চিরুনি অভিযান পরিচালিত হবে। এই অভিযান শেষে আমি নিজেই আবার অভিযানে নামবো। তখন যদি কেউ অনুরোধ করেন জরিমানা না করার জন্য, তা শোনা হবে না। এ শহরের নিরাপত্তার জন্য আমাকে কঠোর হতেই হবে।”

মশক বিভাগকে নির্দেশনা দিয়ে মেয়র বলেন, “অভিযান চলাকালীন দশ দিন মশক বিভাগের সব ছুটি বাতিল করা হলো। এদিন তাদের সবাইকে কাজে থাকতে হবে। আমাদের কাউন্সিলররা মাঠে থাকবেন। আমাদের মহিলা কাউন্সিলররা মাঠে থাকবেন। সামাজিকভাবে সব স্কুলে, পাড়া-মহল্লা, মসজিদে খুতবার সময় যেন প্রচার করা হয় তারও নির্দেশনা দিচ্ছি।”

এসময় স্কুলের অভিভাবকদের সাথে আলাপকালে মেয়র বলেন “এডিস মশার জন্ম হয় সচ্ছ পানিতে, টায়ারে, ফুলের টবে। তাই আমি অনুরোধ করছি ‘তিন দিনে এক দিন জমা পানি ফেলে দিন’। আসুন আমরা সকলেই সচেতন হই এবং অন্যকে সচেতন করি। নিজের জীবনের দায়িত্ব আমাদের নিজেদেরকেই নিতে হবে। তাই আমরা সকাল বেলা ঘুম থেকে উঠে আগে আমাদের বাসা বাড়ি পরিষ্কার করে নিব।”

মশার বংশবৃদ্ধিতে যারাই ভূমিকা রাখবে তাদের বিরুদ্ধেই ব্যবস্থা নেওয়া হবে জানিয়ে মেয়র বলেন, “সরকারি হোক, বেসরকারি হোক কিংবা আধা সরকারি হোক এডিসের লার্ভা পাওয়া গেলে তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হবে। জরিমানা করা হবে।”

উক্ত পথসভায় আরো উপস্থিত ছিলেন ডিএনসিসির প্রধান স্বাস্থ্য কর্মকর্তা বিগ্রেডিয়ার জেনারেল মোঃ জোবায়দুর রহমান, ডিএনসিসির কাউন্সিলরবৃন্দ, আঞ্চলিক নির্বাহী কর্মকর্তাবৃন্দ এবং অন্যান্য ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাবৃন্দ।