শেষ বলে তাসকিনের ছক্কায় বাংলাদেশ ১২৭

খেলাধুলা লিড নিউজ

পাকিস্তানের বিপক্ষে বাংলাদেশ আগে ব্যাট করে ৭ উইকেট হারিয়ে ১২৭ রান সংগ্রহ করেছে। বাংলাদেশের যখন অল্পরানে গুটিয়ে যাওয়ার শঙ্কা জেগেছিল তখন হাল ধরেন মেহেদী হাসান। ২০ বলে ১ চার ও ২ ছক্কায় তিনি অপরাজিত ৩০ রান করেন। আর তাসকিন আহমেদ শেষ বলে হ্যারিস রউফকে স্কয়ার লেগ দিয়ে উড়িয়ে মেরে ইনিংস শেষ করেন।

মাত্র ১৫ রানে ৩ উইকেট হারানোর পর বাংলাদেশের ব্যাটসম্যানদের আসা-যাওয়ার মাঝে কিছুটা বিরতি পড়েছিল, তা ভাঙল মাহমুদউল্লাহর উইকেটে। আফিফ হোসেনের সঙ্গে তার জুটি ছিল ২২ রানের। মাহমুদউল্লাহ ১১ বলে ৬ রান করে মোহাম্মদ নওয়াজের বলে বোল্ড হন।

পাওয়ার প্লের প্রথম ৬ ওভারে ৩ উইকেটে ২৫ রান করা বাংলাদেশ ৯ ওভারে ৪০ রান করেছে ৪ উইকেটের বিনিময়ে।

নাঈম-সাইফের পর হতাশ করলেন শান্ত

৩, ১০- এরপর ১৫ রানে আরেকটি উইকেট। বাংলাদেশ হারালো তৃতীয় উইকেট। মোহাম্মদ নাঈম ও সাইফ হাসান ১ রানে ফিরে গেছেন আগেই। এবার ৭ রান করে আউট নাজুল হোসেন শান্ত। ১৪ বলে ৭ রান করে মোহাম্মদ ওয়াসিমকে ফিরতি ক্যাচ দেন পঞ্চম ওভারের চতুর্থ বলে। ৪.৪ ওভারে ১৫ রানে নেই ৩ উইকেট।

অভিষেকে সাইফের ১ রান

টি-টোয়েন্টিতে অভিষেক স্মরণীয় করতে পারলেন না সাইফ হাসান। ৮ বল খেলে করেন মাত্র ১ রান। তৃতীয় ওভারের শেষ বলে মোহাম্মদ ওয়াসিমের শিকার হন ফখর জামানকে ক্যাচ দিয়ে। ৩ ওভারে ১০ রানে ২ উইকেট নেই বাংলাদেশের।

নাঈমের বিদায়ে ৩ রানে ভাঙল উদ্বোধনী জুটি

মোহাম্মদ নাঈম মাত্র ১ রান করে বিদায় নিলেন। নতুন ওপেনার সাইফ হাসানের সঙ্গে উদ্বোধনী জুটি বড় করতে পারেননি। দ্বিতীয় ওভারে হাসান আলীর প্রথম বলে তার ব্যাট ছুঁয়ে বল পেছনে মোহাম্মদ রিজওয়ানের হাতে ধরা পড়ে। ৩ বলে নাঈম করেন ১ রান। উদ্বোধনী জুটি ছিল ২ রানের। ১.১ ওভারে ৩ রানে ১ উইকেট নেই বাংলাদেশের।

একাদশে বিপ্লব, টি-টোয়েন্টিতে অভিষেক সাইফের

সাকিব আল হাসান, মুশফিকুর রহিম এই সিরিজের দলে নেই। চার নতুন মুখ হিসেবে জায়গা পেয়েছিলেন আকবর আলী, সাইফ হাসান, ইয়াসির আলী রাব্বি ও শহীদুল ইসলাম। তাদের মধ্যে সাইফ প্রথমবার টি-টোয়েন্টি খেলতে যাচ্ছেন, বাকি তিনজনকে থাকতে হচ্ছে অপেক্ষায়।

গত বছর মার্চে জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে শেষ টি-টোয়েন্টি খেলা লেগ স্পিনার আমিনুল ইসলাম বিপ্লবের সঙ্গে বোলিং আক্রমণে তিন পেসার- মোস্তাফিজুর রহমান, তাসকিন আহমেদ ও শরিফুল ইসলাম।

বাংলাদেশ: মোহাম্মদ নাঈম, সাইফ হাসান, নাজমুল হোসেন শান্ত, মাহমুদউল্লাহ (অধিনায়ক), আফিফ হোসেন, নুরুল হাসান (উইকেটকিপার), শরিফুল ইসলাম, তাসকিন আহমেদ, আমিনুল ইসলাম বিপ্লব, মেহেদী হাসান, মোস্তাফিজুর রহমান।

পাকিস্তান: বাবর আজম (অধিনায়ক), মোহাম্মদ রিজওয়ান (উইকেটকিপার), ফখর জামান, হায়দার আলী, শোয়েব মালিক, খুশদিল শাহ, মোহাম্মদ নওয়াজ, শাদাব খান, হাসান আলী, হারিস রউফ, মোহাম্মদ ওয়াসিম জুনিয়র।

টস জিতে ব্যাটিংয়ে বাংলাদেশ

টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে উড়তে থাকা পাকিস্তানের বিপক্ষে শুরু হচ্ছে বাংলাদেশের লড়াই। মিরপুর শের-ই-বাংলায় টস জিতে প্রথম টি-টোয়েন্টিতে বাংলাদেশ ব্যাটিং নিয়েছে।

পাকিস্তান আগের দিন ১২ জনের দল ঘোষণা করেছিল। ওই দল থেকে বাদ পড়েছেন পেসার শাহীন শাহ আফ্রিদি।

সামর্থ্যের প্রমাণ দেওয়ার পালা বাংলাদেশের

পাকিস্তানের বিপক্ষে টি-টোয়েন্টি সিরিজকে চ্যালেঞ্জ মনে করে নিজেদের সামর্থ্য প্রমাণের সুযোগ দেখছেন বাংলাদেশ অধিনায়ক। আসলে এটা সুযোগ বললে ভুল হবে। অগ্নিপরীক্ষাই যথার্থ শব্দ।

শুক্রবার (১৯ নভেম্বর) দুপুর ২টায় মিরপুর শের-ই-বাংলা জাতীয় ক্রিকেট স্টেডিয়ামে মাহমুদউল্লাহর দল অগ্নিপরীক্ষায় নামবে বাবর আজমের দলের বিপক্ষে।

আক্ষরিক অর্থে নিজেদের ডেরায় আজ এক নতুন বাংলাদেশকে দেখা যাবে। চেনা আঙিনায় যেন অচেনা। দলে ডাক পেয়েছেন সাইফ হাসান, শহীদুল ইসলাম, আকবর আলী ও ইয়াসির আলী রাব্বি। দলে ফিরেছেন নাজমুল হোসেন শান্ত ও আমিনুল ইসলাম বিপ্লব। অর্থাৎ ছয় জন নতুন সদস্য।

সাকিব আল হাসান ও মোহাম্মদ সাইফউদ্দিন নেই ইনজুরির কারণে। লিটন দাস-সৌম্য সরকার বাদ পড়েছেন বাজে পারফরম্যান্সের কারণে। মুশফিকুর রহিমকে নির্বাচকরা বিশ্রাম দেওয়ার কথা বললেও তিনি জানিয়েছেন তাকে বাদ দেওয়া হয়েছে। আর পেসার রুবেল হোসেন দলের সঙ্গে থেকে না খেলেও পাকিস্তান সিরিজে দলে জায়গা পাননি। তাদের নিয়ে উড়তে থাকা বাবরদের বিরুদ্ধে যুদ্ধে নামতে হবে নতুন সেনা নিয়ে।