শেরপুরে বিদ্যুতের ফাঁদ পেতে হাতি হত্যা

লিড নিউজ সমগ্র বাংলা

বৃহস্পতিবার (১৮ নভেম্বর) দিবাগত রাতে বিদ্যুতের ফাঁদ পেতে শেরপুরে আরও একটি হাতি হত্যা করা হয়েছে। হাতিটি যখন বিদ্যুতের ফাঁদে আটকা পড়ে, তখন নিজেকে বাঁচাতে চিৎকার করছিল।

শেরপুরের নালিতাবাড়ী সীমান্তের পানিহাতা গ্রামের ফেকামারির পাহাড়ঘেরা একটি সমতল ভূমিতে ফাঁদ পেতে হাতিটিকে হত্যা করা হয়।

শুক্রবার (১৯ নভেম্বর) সকালে হাতিটির ‍মৃতদেহ উদ্ধার করে বন বিভাগ।

ঘটনার আগের দিন বন্যহাতির ছবি তুলতে শেরপুরে গিয়েছিলেন জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রাণীবিদ্যা বিভাগের অধ্যাপক ড. মনিরুল এইচ খান। ঘটনাস্থল থেকে তিনি জানান, আলামত দেখে এটি স্পষ্ট যে হাতিটিকে জেনারেটরের বিদ্যুতের ফাঁদ পেতে হত্যা করা হয়েছে। হাতিটির শুড় বিদ্যুতের শকে পুড়ে গেছে।

তিনি বলেন, গতরাত ১২টার দিকে স্থানীয়রা হাতিটির গগনবিদারী চিৎকার শুনেছে। এর অর্থ ওই সময়েই হাতিটি ফাঁদে পড়েছিল।

ড. মনিরুল বলেন, সকালে ঘটনাস্থলে গিয়ে দেখা যায়, সদ্যমৃত হাতির পাশে একটি গর্ত খোঁড়া হয়েছে। এর মানে দাঁড়ায় হাতিটি হত্যার পর গর্ত খুড়ে এটিকে মাটিচাপা দিয়ে হত্যার ঘটনাকে লুকানোর চেষ্টা করা হয়েছে। তবে মাটিচাপা দেবার আগেই হয়তো ভোর হয়ে গিয়েছিল। তাই কাজটি অসমাপ্ত রেখেই ঘটনাস্থল থেকে পালিয়েছে হত্যাকারীরা।

এদিকে হাতির মৃত্যর খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে যান বন বিভাগের মধুটিলা রেঞ্জ কর্মকর্তা আব্দুল করিম। তিনি বলেন, হাতিটি একটি ধানক্ষেতে মারা গেছে। আমি ঘটনাস্থলে আছি। উপজেলা প্রাণী সম্পদের চিকিৎসক হাতিটির ময়নাতদন্তের জন্য নমুনা সংগ্রহ করেছেন। ময়নাতদন্তের পর বলা যাবে কিভাবে হাতিটির মৃত্যু হয়েছে। আমরা পরবর্তীকে সে অনুযায়ী ব্যবস্থা নেব।