সেতুধসে দুই বছর পানিতে, দেখার কেও নেই

সমগ্র বাংলা

সিবিসি নিউজ ডেস্কঃ কুমিল্লার দাউদকান্দি উত্তর ইউনিয়নের গোমতীর শাখা নদীর ওপর নির্মিত পাকা সেতুটি গত দুই বছর আগে ধসে নদীর পানিতে পড়ে আছে, ২ বছর পরে থাকার ফলে দেখার কেও নেই। এরপর থেকে সড়কপথে এলাকার মানুষের সরাসরি যোগাযোগ একেবারে বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়ে। ভাঙ্গার পর থেকে জনগণের যাতায়াতের ভরসা হয়ে পড়ে নৌকা আর এলাকাবাসীর চাঁদায় সেতুর পাশে সম্প্রতি নির্মিত বাঁশের সাঁকো।

দাউদকান্দি, তিতাস ও মেঘনা উপজেলার বেশ কয়েকটি ইউনিয়ন এলাকার অন্তত অর্ধলক্ষাধিক জনগণকে সীমাহীন দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে প্রতিনিয়ত। এদিকে সেখানে নতুন সেতু নির্মাণের জন্য প্রায় চার মাস আগে ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠানকে কার্যাদেশ দেওয়া হলেও তারা এখনো কাজ শুরু করেনি, কেন কাজ শুরু হয়নি তার সুরাহা করতে পারেনি প্রশাসন।  এলাকার স্থানীয় নানা পেশার ভুক্তভোগী লোকজনের সঙ্গে কথা বলে এসব জানা যায় এবং দাউদকান্দি উপজেলা স্থানীয় সরকার প্রকৌশলীর কার্যালয়ও একই কথা বলছে ।

সরেজমিনে  গিয়ে দেখা যায়, দাউদকান্দি উপজেলা সদর হতে কদমতলী পর্যন্ত সড়কের গোমতীর শাখা নদীর ওপর নির্মিত দাউদকান্দি উত্তর ইউনিয়নের কেডিসি-সংলগ্ন পাকা সেতুটি ২০১৮ সালের ৮ অক্টোবর ইটবোঝাই ট্রাক পারাপারের সময় বিকট আওয়াজে নদীতে ধসে পড়ে। এরপর থেকে সড়কপথে যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন হয়ে যাওয়ায় লোকজন প্রয়োজনীয় মালামাল নিয়ে নৌকাযোগে দিনের বেলায় নদীপথ ঘুরে অতি কষ্টে যাতায়াত করে আসছেন।

এতে করে তাদের সময় ও অতিরিক্ত টাকা ব্যয় হচ্ছে। সড়কপথে এ সেতু দিয়ে জেলার দাউদকান্দি পৌর এলাকা, দাউদকান্দি উত্তর ইউনিয়ন, তিতাস ও মেঘনা উপজেলার কয়েকটি ইউনিয়নের প্রায় অর্ধলক্ষাধিক জনগণ নিয়মিত যাতায়াত করতেন। কিন্তু সেতুটি ভেঙে পড়ায় সড়কপথে যানবাহন চলাচল বন্ধ থাকায় এলাকার শিক্ষক, শিক্ষার্থী, কৃষক, ব্যবসায়ীসহ নানা পেশার বিভিন্ন বয়সের মানুষ দুর্ভোগে পড়েন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *